অনামিকায় কেন পরানো হয় বিয়ের আংটি, জানেন কি? August 30, 2019 BD News, Career, Exclusive (বিচিত্র), Lifestyle, News, World News

বিডি ওয়ার্ল্ড নিউজ ডেস্কঃ  বিয়েতে অনামিকায় আংটি পরানোর চল সারা বিশ্বেই। কিন্তু আংটিটা কেন অনামিকাতেই পরানো হয় তা অনেকেরই অজানা। আবার আংটির আকার গোলাকার হওয়ারও বিশেষ কারণ আছে। বৃত্তের কোনো প্রান্ত নেই, অসীম এর যাত্রা। ভালোবাসারও যাতে কোনো প্রান্ত না থাকে, তারই রূপক উপস্থাপন ছিল এর আকারে।


প্রাচীন গ্রিক ও রোমানরা বিশ্বাস করতেন, বাঁ হাতের অনামিকা সরাসরি হৃৎপিণ্ডের সঙ্গে সংযুক্ত। যার কারণে তারা এর নাম দিয়েছিলেন ভেনা আমোরিস বা ভালোবাসার ধমনি। এই বিশ্বাসে অনামিকায় আংটি পরানো হতো। দুটি প্রেমপূর্ণ হৃদয়ের মিলন ঘটতো গোলাকার আংটির রূপ ধরে।


চীনা উপকথায় অনামিকা নিয়ে আরেক ধরনের তত্ত্ব আছে। চীনারা বিশ্বাস করে, হাতের পাঁচ আঙুল আমাদের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রকাশ করে। এই তত্ত্বের ছোট একটা পরীক্ষাও আছে। আমাদের বুড়ো আঙুল প্রতিনিধিত্ব করে আমাদের বাবা-মাকে। তর্জনী আমাদের সন্তানদের। মধ্যমা আমাদের নিজেকে। অনামিকায় আছে আমাদের জীবনসঙ্গী। কনিষ্ঠায় আমাদের নাতি-নাতনিরা।

  এবার দুই হাতে সবগুলো আঙুলের মাথা পরস্পর স্পর্শ করুন। মধ্যমা আমাদের নিজের চিহ্ন, তাই একে ভাঁজ করে ভেতরের দিকে রাখুন যাতে মধ্যমার গাঁট দুটো লেগে থাকে। এবার এক এক করে ওপরে থাকা আঙুলগুলো আলাদা করার চেষ্টা করুন। বুড়ো আঙুল আলাদা করা যায়, অর্থাৎ আমরা বাবা-মায়ের কাছ থেকে আলাদা হয়ে যাব। তর্জনী আলাদা করা যায়, মানে আমাদের সন্তানেরাও সব সময় আমাদের সঙ্গে থাকে না। কনিষ্ঠাও তা-ই, নাতি-নাতনিরাও সারা জীবন পাশে থাকে না। কিন্তু অনামিকা আলাদা করা যায় না।  


শুধু পশ্চিমা সংস্কৃতি নয়, অনামিকায় আংটি পরানোর রীতি এখন সারা বিশ্বে। সব আঙুল আলাদা করা গেলেও মধ্যমা দুটো ভেতরের দিকে ভাঁজ করে রাখা অবস্থায় কেবল অনামিকা আলাদা করা যায় না। অর্থাৎ সঙ্গীর সঙ্গে থাকতে হবে সারা জীবন। এ জন্যই অনামিকায় আংটি পরানো হয়। তবে এসবই তত্ত্ব, উপকথা বা নেহাত যুক্তিহীন বিশ্বাস। আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে ভালোবাসা থাকলে, যে হাতের যে আঙুলেই আংটি পরেন না কেন, নিশ্চয়ই সুখী জীবন যাপন করবেন।